শেরপুর সরকারি কলেজের ইতিহাস

বিখ্যাত মোঘল সম্রাট মহামতি আকবরের আমলে আদি ব্রহ্মপুত্র নদের উত্তর-পূর্ব পাড় হতে গারো পাহাড়ের পাদদেশ পর্যন্ত সু-বিস্তৃত অঞ্চলের একটি পরগনার নাম ছিল দশকাহনিয়া। পরবর্তীতে বাংলার বিখ্যাত গাজী বংশের উত্তর পুরুষ ও পরগণা দশকাহনিয়ার জায়গীরদার শের আলী গাজীর পূণ্যস্মৃতি বিজরিত এ অঞ্চলটি তার নামানুসারে শেরপুর নাম ধারণ করে। বৃটিশ আমলের জমিদারদের দ্বার অবহেলিত ও শোষিত এ বিরাট জনগোষ্ঠি সংগত কারণেই পশ্চাদপদ জনগোষ্ঠি হিসেবে পরিগণিত। তখনকার সেই পিছিয়ে পড়া জনগণকে শিক্ষিত করে তোলার পাশাপাশি উচ্চ শিক্ষার জন্য কলেজ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন ছিল দীর্ঘদিনের। কিন্তু কোন স্বপ্নই সাধনা ছাড়া বাস্তবায়ন সম্ভব নয়। তাই শেরপুরের জনসাধারণ ও তৎকালীন নেতৃবৃন্দের উদ্যম, শ্রম ও ঐকান্তিক প্রচেষ্ঠার ফসল হিসেবেই ১৯৬৪ সালের জি.কে পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ব্যায়ামাগারে শেরপুর কলেজ নামক ছোট শিশুটির জন্ম হয়। হাঁটি হাঁটি পা পা করে প্রায় ১৬ মাস পর্যন্ত জন্মস্থানেই কলেজটির সকল কার্যক্রম চলতে থাকে। পরে ১৯৬৫ সলের নভেম্বরের দিকে বর্তমান কলেজের টিনসেড কক্ষের নির্মান কাজ সমাপ্তির পরই যথারীতি বর্তমান কলেজের ক্লাস শুরু হয়। সে সময় থেকে আজ পর্যন্ত কলেজের অনেক উন্নতি সাধিত হয়েছে। অনেক চরাই উৎড়াই পার হয়ে ১৯৮০ সালের ১লা মার্চ কলেজটি সরকারি কলেজ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। জন্মলগ্ন থেকেই কলেজটিতে সহশিক্ষা বিদ্যমান।

কলেজের নাম : শেরপুর সরকারি কলেজ
ঠিকানা : মহল্লা : রাজবাড়ী, মৌজা : শেরপুর, ওয়ার্ড নং : 6, শেরপুর সদর, শেরপুর
কলেজ প্রতিষ্ঠার তারিখ (বেসরকারি) : 01/07/1964 খ্রি:
কলেজ সরকারি করণের তারিখ : 01/03/1980 খ্রি:
সহশিক্ষা ব্যবস্থা : হ্যা
ফোন নম্বর : 0931-61219